প্রণতি

এসো হে প্রণত পাখি, ছিঁড়ে খুড়ে ডানা এসো

নেমে এসো অনুর্বর বিশাল আঁধারে

আজ দীর্ঘ, দীর্ঘ, দীর্ঘশ্বাস

ভেদ করে নেমে পড়ো, ভিত্তিহীন স্বতন্ত্র দেয়ালে

 

উড়েছে বিষণ্ন পাখি বিষাক্ত শরীর নিয়ে

নিলীমাকে ছত্রখান করে দিয়ে

বেজে ওঠে কণ্ঠস্বর–ও তার চিৎকার!

 

কার কিবা আসে যায়

পাখিরা উড়বে আরো, ডানা ছেড়ে

উড়ুক পাখিরা; আমি পাখি পুষি না তো!

১৯৮৯

Flag Counter

উপবন এক্সপ্রেস

বাঁ আসনে যে রমণী ম্রিয়মাণ ঘুমিয়েছে বসে তার দোলাচল স্তন ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে ট্রেন উপবন বনে বনে জলের পাথরে যায় লাগিয়ে আগুন কু ঝিক কু ঝিকঝিক দোলাচল লাইন ছেড়ে উঠেছে আকাশে বগি মেঘের জংশন ছুঁয়ে দিগ্বিদিক নৈশপ্রহরী হেসে দোলাচল সুলভ শ্রেণীতে ঢুকে ঘুমন্ত মেয়ের ছিঁড়ে যাওয়া স্তন হাতড়ে আলুথালু বেঁধে দেয় অতিযত্নে দোলাচল বিনয়ে গলিত হয়ে মলম ব্যান্ডেজ

 

শিক্ষা

শিক্ষা নেবো এই সূত্রে
দুইশত তেরো মাথা ধারণ করেছি।

অবিদ্যা-আসক্ত গুরু দিব্যজ্ঞানবান
চোখ বুঁজে ঢেলে দেন
আলোর সন্ধান।

শিখে নেই ব্যাকুল হৃদয় উন্মাতাল
সকাল শিক্ষার মূল; গুরুর অধিক গুরু হয়ে
ছড়াই বিদ্যার তেজ আকাশপাতাল–

অসহশিক্ষিকাবৃন্দ ঢুকে পড়ে স্নায়ুপথে
কালো চশমা হাতে
শাদা চোখ ডুবে যায় যৌনধারাপাতে।

৮/৭/১৯৮৯

kalidas1

Flag Counter

মনসা

উজানে ভেসেছি গঙ্গা গা ভরতি মাদুলি কবজ কড়ি হাত পা জড়িয়ে আছে শরীর জড়িয়ে আছে শীতল শরীর আহা মন আমার উথালপাতাল কত খাল বিল নদী নদ পেরিয়ে এলাম তোকে বোঝাব কেমনে গঙ্গা কী যে সুখে ভেসে যাই ডানে বাঁয়ে হা পিত্যেশ ছড়ানো সংসারে কত ভাই বন্ধু আত্মীয় স্বজন দেয় উলুধ্বনি নায়ে নায়ে আবাল্য সখীরা ডাকে না যাও রে ভরা গাঙে ডিঙা ডোবে ডিঙা ভাসে দেবর ননদ জা সতীন শাশুড়ি চলে পাশে ভেসে জলটানে চলেছি অবলা নারী বিভাজিত জিহ্বার আশ্রমে

 

২২/৩/১৯৮৯

 

Flag Counter

দাবা

আমরা বংশানুক্রমে হাতিশালে ঘোড়াশালে হাতিঅন্ত ঘোড়াঅন্ত প্রাণ নিয়ে পড়ে থাকি অবসরে দাবা খেলি আমি আর জ্ঞানপাপী খাকি দারোয়ান খেলি তাই গুটিশুটি পড়ে থাকা গুটি খাই হাতি ঘোড়া চাঁদ মারি ইচ্ছামতো কখনো বা খাকির যে আটজন কালো কাফ্রি সৎভাই ধরে ধরে তাদের পুড়িয়ে মারি গন্ধ শুঁকে নৌকা আসে ভোগ চায় রাজামন্ত্রীদানবদেবতা দেয় রাজকন্যা ভেট আমি নতুন নিয়মে খেলি শক্তিমদমত্ত বিষকন্যা নিয়ে চৌষট্টি পর্যায়ে খুলে পরাবাৎসায়ন

১৫/৩/১৯৮৯

 

পূর্ণিমায় ধানক্ষেতে

ছায়াময় ফাঁদ আর মাছদের আনন্দভ্রমণ
ঘুঘু ঘুঘু শাদা বক রোদে রোদে ঘুরে
প্রখর দুপুরে যায় হাটবার ভেঙে

পূর্ণিমায় ধানক্ষেতে আগুন জ্বেলেছি তাই
অর্ধেক জলের খালে পাগল এসেছে

 

৫ /৩/১৯৮৯

 

Flag Counter